টিপস

ই-পর্চা www.eporcha.gov.bd অনলাইনে যে কোন খতিয়ান, Porcha Number, Online E-porcha

ই-পর্চা অনলাইনে যে কোন খতিয়ান। ই-পর্চা সংক্রান্ত সকল তথ্য জানতে পারবেন এখান থেকে। সুতরাং যারা ই-পর্চা সম্পর্কে জানার জন্য অনলাইনে অনুসন্ধান করে আমাদের ওয়েবসাইটে এসেছেন তারা এখান থেকে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে পারবেন। আমরা দীর্ঘদিন ই-পর্চা সম্পর্কে অনুসন্ধান এর ফলে আপনাদের সামনে এই পোস্টটি নিয়ে উপস্থিত হতে সক্ষম হয়েছে। অর্থাৎ যারা এই সম্পর্কে জানার জন্য আমাদের ওয়েবসাইটটি দেশে তারা এই বিষয়ে বিস্তারিত সঠিক তথ্য জানতে পারবেন।

এই পোষ্টের মাধ্যমে আমরা যে বিষয়গুলি সম্পর্কে জানতে পারবেন তাহলে অনলাইনে জমির মালিকানা যাচাই প্রক্রিয়া। এই প্রক্রিয়াটি সম্পূর্ণ সঠিক তথ্য জানতে পারবেন এখান থেকে। এছাড়াও যে বিষয়টি সম্পর্কে জানতে পারবেন সেটি হচ্ছে অনলাইনে যেকোন জমির খতিয়ান বের করার নিয়ম। আমরা সকলেই জানি বর্তমান সময়ে অনেকেই অনলাইনে জমির খতিয়ান বের করার নিয়ম সম্পর্কে জানতে চান। তাই এখানে এই বিষয়ে আমরা আলোচনা করেছি। এছাড়াও মালিকানা যাচাই প্রক্রিয়া সম্পর্কে এখানে আলোচনা করা হবে।

সুতরাং ই-পর্চা সংক্রান্ত বা জমির মালিকানা যাচাই এবং খতিয়ান সংক্রান্ত সকল তথ্য সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য রয়েছে এখানে। এই বিষয়ে জানার উদ্দেশ্য নিয়ে যারা এখানে এসেছেন তারা অবশ্যই এখান থেকে এ বিষয়ে সম্পর্কে জানতে পারবেন। সুতরাং সঠিক তথ্য জানার জন্য আপনাকে অবশ্যই মনোযোগ সহকারে পুরো পোস্টটি পরতে হবে। এর ফলে আপনি এ বিষয়ে বিস্তারিত জ্ঞান লাভ করতে পারবেন।

ই পর্চা কি?

অনেকেই এই সেবা গ্রহণ করে থাকলেও এখন পর্যন্ত অনেক ব্যক্তি রয়েছেন যারা ই সেবার বিষয়ে জানেন না। ই-সেবা অর্থাৎ অনলাইন ভিত্তিক সেবা গুলোর মধ্যে অন্যতম একটি সেবা হচ্ছে ই-পর্চা। জমি সংক্রান্ত বিষয়ে যারা জানতে আগ্রহী তারা অবশ্যই ই-পর্চার বিষয়ে জেনেছেন কিংবা জানার আগ্রহ নিয়ে অন লাইনে এসেছেন। এক্ষেত্রে আপনারা এখান থেকে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে পারবেন এবং যারা ই-পর্চা সুবিধা নেওয়ার জন্যই ব্যবসা সম্পর্কে জানার জন্য বর্তমান সময়ে আমাদের ওয়েবসাইটে অবস্থান করছেন তারা সঠিক ওয়েবসাইটে এসেছেন। ই-পর্চা মূলত এমন একটি সেবা যেখান থেকে আপনি জমির খতিয়ান ডাউনলোড করে নিতে পারবেন এছাড়াও খুব সহজ পদ্ধতি অবলম্বন করে জমির মালিকানা যাচাই করে নিতে পারবেন। প্রথমদিকে এই সেবাটি অনেকেই বিশ্বাস করতো না তবে বর্তমান সময়ে সকলেই সেবা সম্পর্কে জানেন। এটি হচ্ছে বাংলাদেশ ভূমি মন্ত্রণালয় কর্তৃক একটি অনলাইন ভিত্তিক সেবা অনেকেই এটিকে ডিজিটাল সেবা বলে থাকেন।

ই-পর্চা

ই-পর্চা কি এই বিষয়টি সম্পর্কে অনেকেই জানেন না। এ কারণেই আমরা আজকে এখানে ই-পর্চা সম্পর্কে আপনাদের সাধারণ ধারণা থেকে এই বিষয়ে সম্পূর্ণ ধারণা দিয়ে রাখব সেই সাথে ইপদ কার জন্য অনলাইনে আবেদন করার পদ্ধতি জানতে পারবেন এখান থেকে। সুতরাং আজকের পোস্টের বিষয় ও তার জন্য আবেদন করার পদ্ধতি অবশ্যই এখান থেকে জেনে যাবেন। এর ফলে আপনি পরবর্তী সময়ে উপকৃত হবেন বলে মনে করি। অবশ্যই জমি সংক্রান্ত বিষয় গুলি আপনি খুব মনোযোগ সহকারে পড়বেন। অন্যথায় আপনি ভুল সিদ্ধান্ত অথবা ভুল তথ্য ধরে রাখতে পারেন। অন্য সকল বিষয়ের তুলনায় জমিসংক্রান্ত বিষয়গুলিতে সচেতন থাকা প্রতিটি মানুষের উচিত। এর কারণ বর্তমান সময়ে জমি নিয়ে বিভিন্ন মামলা হয়ে থাকে। এবং এই সকল মামলার সমাধান খুবেই সময় সাপেক্ষ। সুতরাং বুঝতেই পারছেন আজকের পোস্ট এর গুরুত্ব।

ই-পর্চার সুবিধা

অবশ্যই আমাদের ই-পর্চার সুবিধাগুলো জানার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। এর কারণ ডিজিটাল সেবা গুলোর মাধ্যমে আমাদের জটিল ও কঠিন কাজ গুলো অনেক সহজ করা হয়ে থাকে। সুতরাং এই সেবাসমূহ গুলো সম্পর্কে জানার মাধ্যমে আমরা আমাদের সময় ও শ্রম কমিয়ে দিতে পারি। এছাড়াও আমরা সকলেই জানি জমি সংক্রান্ত কাজে বিপুল পরিমাণে সময়ের প্রয়োজন হয়ে থাকে। এক্ষেত্রে আমাদের এই সময় অপচয় থেকে বিরত রাখতে বাংলাদেশ ভূমি মন্ত্রণালয় কর্তৃক ডিজিটাল সেবার ব্যবস্থা করেছেন। যেখান থেকে আমরা খুব সহজেই জমির মালিকানা বের করতে পারবো।

এছাড়াও আমরা জমির খতিয়ান নাম্বার দিয়ে কিংবা জমির দাগ নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম জানতে পারবো। এই সেবার মধ্যে অন্যতম একটি আকর্ষণীয় ব্যাপার হচ্ছে ই-পর্চা ওয়েবসাইট থেকে জমির মালিকের নাম এবং মালিকের পিতার নাম ব্যবহার করে ওই মালিক এর নামে যে সকল জমি রয়েছে সবগুলোর তথ্য জানা যায়। কিছু সংখ্যক মানুষ এই তথ্যগুলো জানার জন্য এই সেবাকে পছন্দ করে থাকেন এবং বেছে নিয়ে থাকেন। আমাদের পুরো পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়লে আপনিও এই বিষয়গুলো সম্পূর্ণভাবে জানতে পারবেন।

অনলাইন ই পর্চা

অনলাইন ই পর্চার বিষয়ে এখন পর্যন্ত গ্রাম অঞ্চলের মানুষ গ্রহণ অবগত নন। এই বিশাল সেবা থেকে বঞ্চিত অনেকেই। এর উল্লেখযোগ্য কারণ হচ্ছে অনলাইন সেবা সমূহ সম্পর্কে আমাদের জ্ঞান অর্জনের অভাব। আমরা জানিনা বাংলাদেশ সরকার আমাদের জন্য অনলাইন ভিত্তিক কি কি সেবা প্রদান করছে এই বিষয়ে। সুতরাং যারা এখন পর্যন্ত অনলাইনে পর্চা সম্পর্কে জানেন না তারা অবশ্যই এখান থেকে এ বিষয়ে বিস্তারিত জ্ঞান অর্জন করবেন। এবং এর পরবর্তী সময়ে ই-পর্চা সংক্রান্ত সমস্যার সামাধান অনলাইন থেকে নেওয়ার চেষ্টা করবেন। এক্ষেত্রে আপনার সময় শ্রম কমবে। অনলাইনে ই পচার জন্য আবেদন আমরা নিচে তুলে ধরছি। এ বিষয়ে বিস্তারিত জানার জন্য পুরো পোস্টের সাথে থাকুন।

খতিয়ান নম্বর কি?

জমিসংক্রান্ত অনেক বিষয় সম্পর্কে জানলেও এখনো অনেক ব্যক্তি রয়েছেন যারা খতিয়ান নাম্বার কি বিষয়ে সঠিকভাবে জানে না। খতিয়ান নাম্বার কি কিংবা এর কাজ কি এই বিষয়ে সম্পর্কে জানার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে এক্ষেত্রে আমরা বিষয়টি আপনাদের মাঝে উল্লেখ করছি। খতিয়ান নাম্বার মূলত জমি সংক্রান্ত খাতাগুলো কে আলাদাভাবে চিহ্নিত করার জন্য প্রতিটি খাটের উপর একটি সংখ্যা বরাদ্দ থাকে সেদিকে শুধুমাত্র দ্রুত চিহ্নিত করার কাজে ব্যবহার করা হয়। এক্ষেত্রে মূলত এটি ব্যবহার করা হয়ে থাকে সুতরাং খতিয়ান নাম্বার হচ্ছে প্রয়োজনীয় খাতাগুলো দ্রুত চিহ্নিত করার জন্য একটি সংখ্যা মাত্র। এর কাজ হচ্ছে দ্রুত খাতাটি খুঁজে বের করার ক্ষেত্রে। অনেকেই এই বিষয়ে সম্পর্কে না জেনে এটাকে অনেক বড় ধরনের কিছু মনে করে থাকেন। আশা করছি এখান থেকে জানতে পারলেন খতিয়ান নাম্বার কি এছাড়া জমি সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ে প্রদান করা হয়েছে।

খতিয়ান বা পর্চা কত প্রকার?

অনেকেই এখন পর্যন্ত জানেন না খতিয়ান কত প্রকার ও কি কী ? এক্ষেত্রে এই বিষয় সম্পর্কে জানতে আগ্রহী হয়ে অনেকেই অনলাইনে অনুসন্ধান করেছেন ? এমন ব্যক্তিদের সহযোগিতার উদ্দেশ্যে আমরা খতিয়ান কত প্রকার ও কি কি এই বিষয়টি উল্লেখ করেছি এছাড়াও এর ঠিক উপরে খতিয়ান কি এ বিষয়ে সম্পর্কে সংক্ষেপে আলোচনা করা হয়েছে। এই পোস্টটিতে আমরা জমি সংক্রান্ত বিভিন্ন তথ্য প্রদান করেছি বিস্তারিতভাবে এতে করে আপনি জমিসংক্রান্ত অনেক বিষয় সম্পর্কে জানতে পারবেন নিচে খতিয়ান এর প্রকারভেদ উল্লেখ করা হয়েছে।

সাধারণত চার ধরনের খতিয়ান রয়েছে আমাদের দেশে। যথা-

১.সিএস খতিয়ান। (Cadastral Survey)

২.এসএ খতিয়ান । (State Acquisition Survey)

৩.আরএস খতিয়ান। (Revisional Survey)

৪.বিএস খতিয়ান/সিটি জরিপ। (City Survey)

ই-পর্চা অনলাইন আবেদন

ই-পর্চা জন্য অনলাইনে আবেদন করার নিয়ম সম্পর্কে আমাদের জানতে হবে। আবেদনের প্রক্রিয়া গুলো সম্পর্কে অনেকেই অবগত নন সুতরাং এ প্রক্রিয়া গুলো জেনে রাখুন। পরবর্তী সময়ে অনলাইনে আবেদন করে আপনি আপনার জমির পর্চা দেখতে পারবেন। জমির সম্পর্কে সচেতন থাকা একান্ত জরুরী। সুতরাং অবশ্যই জমি সংক্রান্ত সকল তথ্য বিস্তারিত ভাবে জানবেন। অনলাইন আবেদনের জন্য নিচের লিংকে ক্লিক করুন

ইপর্চা খতিয়ান ( Eporcha gov BD khation)

আমরা আপনাদের উপর বিপদ সম্পর্কে বিস্তারিত জানিয়েছি। আশা করছি ই পর্চা সংক্রান্ত তথ্য গুলো আপনারা বুঝতে পেরেছেন। এছাড়াও এ বিষয়ে আরো কোন তথ্য জানার প্রয়োজন হয়ে থাকলে আপনি নিজ থেকে তাদের সংগ্রহ করতে পারবেন। আমরা বিশেষ গুরুত্বের সাথে ই-পর্চা সংক্রান্ত সকল ছোট-বড় বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি আপনাদের বোঝার সুবিধার্থে । এখানে আমরা ই পর্চা খতিয়ান সম্পর্কে আপনাদের জানাবো। যেহেতু আমরা পূর্বেই ই-পর্চা সম্পর্কে জেনেছি সুতরাং এখানে শুধুমাত্র খতিয়ান সম্পর্কে জানার প্রয়োজন রয়েছে। জমি সংক্রান্ত কাগজগুলো কে আলাদাভাবে চিহ্নিত করার জন্য প্রতিটি লেজারে অন্যান্য সংখ্যা বরাদ্দ করা হয়ে থাকে এটি শুধুমাত্র চিহ্নিত করার জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে এদের কাজ গুলো সহজ হয়। আর চিহ্নিত করার যে সংখ্যাটি রয়েছে সেটিকে খতিয়ান নাম্বার বলা হয়ে থাকে সুতরাং আপনারা ই পর্চা খতিয়ান নাম্বার কি অবশ্যই জানতে পেরেছেন।

eporcha gov bd login

ই পর্চার অফিশিয়াল ওয়েবসাইট তথা বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক পরিচালিত ভূমি মন্ত্রণালয়ের এ অফিসিয়াল ওয়েবসাইটটি থেকে বিভিন্ন সুবিধা গ্রহণের জন্য এই ওয়েবসাইটে লগইন এর প্রয়োজন হয়ে থাকে । এছাড়াও খতিয়ান বা পর্চার জন্য আবেদন করতে গেলে এই ওয়েবসাইটটি লগইন করতে হয়। এই পোষ্টের শেষ দিকে আমরা ওয়েবসাইট লগইন এর লিংক দিয়ে রাখব সেখান থেকে আপনি আপনার প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো সঠিক ভাবে প্রদান করলে ওয়েবসাইটটি লগইন কাজ সম্পন্ন হবে । এক্ষেত্রে একটি বিষয়ে আপনাদের মাঝে তুলে ধরছি আপনার মোবাইল নাম্বার ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করতে হবে এই ওয়েবসাইট । লগইন পাসওয়ার্ড মনে রাখতে চেষ্টা করবেন তবে এক্ষেত্রে পাসওয়ার্ড ভুলে গেলে লগ ইন পেজ এর নিচে একটি অপশন থাকবে সেখানে ক্লিক করলে ইমেইলের মাধ্যমে পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করার সুযোগ রয়েছে। আশা করছি আপনাদের মাঝে বিষয়টি সঠিকভাবে উপস্থাপন করতে পেরেছি।

অর্থাৎ মোবাইল নাম্বার ও পাসওয়ার্ড মনে রাখতে চেষ্টা করবেন এক্ষেত্রে কোন প্রকার সমস্যা হবেনা বলে জানানো যাচ্ছে। লগ ইন পেজ এর মাধ্যমে আপনাদের মোবাইল নম্বর ও পাসওয়ার্ড চাওয়া হবে যার উপরে নাগরিক লগইন অপশন থাকবে । সঠিকভাবে তথ্য প্রদান করলে পারলে সাইন-ইন বাটনে ক্লিক করুন এবং পাসওয়ার্ড অথবা মোবাইল নাম্বার কোনক্রমে ভুল হয়ে গেলে নিচে পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন অপশনটিতে ক্লিক করে পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করে নিতে পারবেন। আশাকরছি ওয়েবসাইটে অবস্থান করলে আপনি এই সকল বিষয়ে জানতে পারবেন।

eporcha gov bd login
eporcha gov bd login

খুব সহজেই ই-পর্চা লগইন করতে www.eporcha.gov.bd ওয়েবসাইটটি প্রদর্শন করুন আপনারা চাইলে এই লিঙ্ক এ ক্লিক করে ই-পর্চা ওয়েবসাইটে লগইন করে নিতে পারেন।

ভূমি পর্চা

উপরোক্ত আলোচনার মাধ্যমে প্রচার সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে জানতে সক্ষম হয়েছেন বলে আশা করছি। অন্যের ভিত্তিক এই পচা সুবিধার কারণে অনেকেই এটিকে ই পর্চা বলে থাকেন । তবে কিছুসংখ্যক ব্যক্তি রয়েছে যারা এদিকে ভূমি পর্চা কিংবা মাঠ পর্চা বলে থাকেন । এমন ব্যক্তিগণ অনলাইনের মাধ্যমে ভূমি অথবা মাঠ পর্চা সম্পর্কে জানতে সক্ষম হবেন আজকের আলোচনার সাথে থেকে। এক্ষেত্রে এসে অনেকেই বিভ্রান্তি পড়েন, এই কারণে বিষয়টি তুলে ধরে আপনাদের মাঝে উপস্থিত হয়েছি আমরা সম্পর্কিত সমস্ত বিষয় সুন্দরভাবে আপনাদের মাঝে উপস্থাপন করা হয়েছে সমস্ত বিষয় সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করতে আগ্রহী হয়ে থাকলে পুরো আর্টিকেলটি শেষ করুন।

অনলাইনে জমির মালিকানা যাচাই প্রক্রিয়া

অনলাইনে জমির মালিকানা যাচাই প্রক্রিয়া বা যাচাই করার নিয়ম সম্পর্কে জানতে পারবেন এখান থেকে। সুতরাং যারা এই বিষয়ে জানার জন্য অনলাইনে এসেছেন তারা অবশ্যই এখান থেকে এ বিষয়ে বিস্তারিত জ্ঞান লাভ করবেন। আপনাদের সুবিধার্থে আমরা এই পোস্টে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেছি। সুতরাং যারা এ বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চান তারা অবশ্যই পর্যায়ক্রমে এ বিষয়গুলি ফলো করবেন। আমরা আশা করি এখান থেকে আপনি উপকৃত হবেন। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে জননেত্রী শেখ হাসিনা অনলাইনের উপর অধিক গুরুত্ব দিয়েছেন।

এক্ষেত্রে ভূমি মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে আপনি জমির মালিকানা খুঁজে বের করতে পারবেন। সেখান থেকে আপনাকে একটি আবেদন যাওয়া হবে সেই আবেদনটি ফিলাপ করে কনফার্ম করলে আপনি জানতে পারবেন এই বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য। তবে আপনাকে অবশ্যই সঠিক তথ্য দিয়ে ফরম ফিলাপ করতে হবে অন্যথায় আপনি জমির মালিকানা দেখতে সক্ষম হবেন না। মালিকানা দেখতে ক্লিক করুন।

আরো পড়ুন

অনলাইনে যে কোন খতিয়ান

প্রিয় ভিউয়ার্স আপনি কি অনলাইনে জমির খতিয়ান বের করার পদ্ধতি গুলো জানতে চান ? তাহলে এখান থেকে এই বিষয়গুলি জেনে নিন। জমি ক্রয়বিক্রয় সহ সকল ক্ষেত্রে মানুষ অনেক সচেতন। তাই এই বিষয়ে বিস্তারিত জ্ঞান অর্জন করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই মনোযোগ সহকারে আজকের পোস্টটি পড়ে আপনার জমির খতিয়ান বের করার পদ্ধতি গুলো সম্পর্কে জানুন। নিচে খতিয়ান সংক্রান্ত কিছু তথ্য দেওয়া রয়েছে।

বিভাগ নির্বাচন: আপনি কোন বিভাগে বাস করেন সেই বিভাগ নির্বাচন করতে হবে।

জেলা নির্বাচন: আপনি যে জেলার অন্তর্ভুক্ত সেই জেলার নাম নির্বাচন করুন।

উপজেলা নির্বাচন: যেই উপজেলার অন্তর্ভুক্ত আপনি সেই জেলার নাম নির্বাচন করুন।

মৌজা নির্বাচন: আপনার মৌজার নাম নির্বাচন করুন।

খতিয়ান টাইপ নির্বাচন: যে ধরনের খতিয়ান বের করতে চান সেই ধরণ নির্বাচন করুন।

খতিয়ান নং: যে জমির পর্চা বের করবেন তা নির্বাচন করুন।

দাগ নাম্বার: দাগ নম্বর জানা থাকলে নির্বাচন করুন।

মালিকের নাম: মালিকের নাম উল্লেখ থাকলে ম্যানশন করুন।

পিতা /স্বামীর নাম: উল্লেখ থাকলে দিতে পারেন।

ক্যাপচা কোড: উপরে দেওয়া ক্যাপচা কোড টি সিলেক্ট করে অনুসন্ধান বাটনে ক্লিক করুন।

ই খতিয়ান যাচাই ও খতিয়ান অনুসন্ধান

অনেকেই রয়েছেন যারা এখন পর্যন্ত অনলাইন এর মাধ্যমে ই খতিয়ান যাচাই প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানেন না । এর কারণ বর্তমান সমাজের মানুষ অনেকেই ডিজিটাল সেবা গুলো গ্রহন করতে আগ্রহী নন । এর কারণ এই সেবা সমূহ গুলো সম্পর্কে তাদের সঠিক ধারণা নেই। এরপরও অনেকেই এই বিষয়গুলি সম্পর্কে জ্ঞান অর্জনের লক্ষ্যে কিংবা ই সেবা সমূহের মাধ্যমে নিজের সময় ও শ্রম কমাতে অনলাইনে অনুসন্ধান করে যাচ্ছেন। এক্ষেত্রে আমরা আমাদের সাধ্যমত আপনাদের সহযোগিতার লক্ষ্যে নিচে এ খতিয়ান যাচাই ও খতিয়ান অনুসন্ধান করার প্রক্রিয়াটি সম্পূর্ণ রূপ দিয়ে রেখেছি। সেখান থেকে শুধুমাত্র আপনারা আপনার তথ্যগুলো নির্দেশনা অনুযায়ী সঠিক ভাবে দিয়ে সহযোগিতা নিতে পারেন। আশা করছি সকল তথ্য সঠিক গ্রুপে দিলে আপনি আপনার উদ্দেশ্য সফল করতে পারবেন। নিচে অনুসন্ধানের প্রক্রিয়া দেওয়া রয়েছে:

  • প্রথমে ভিজিট করুন https://eporcha.gov.bd/khatian-search-panel 
  • বিভাগ নির্বাচনঃ আপনার নিজস্ব বিভাগ এখানে নির্বাচন করতে হবে।
  • জেলা নির্বাচনঃ আপনি কোন জেলার অন্তর্ভুক্ত তা এখানে নির্বাচন করুন।
  • খাতিয়ান টাইপ নির্বাচনঃ আপনি মুলত কোন ধরনের খতিয়ান বের করতে চান তা নির্বাচন করুন।
  • উপজেলা নির্বাচন করুনঃ আপনি কোন উপজেলার অন্তর্ভুক্ত তা এখানে নির্বাচন করুন।
  • মৌজা নির্বাচন করুনঃ আপনার মৌজার নাম কি তা নির্বাচন করুন।
  • খতিয়ান নংঃ আপনি যে জমির খতিয়ামটি বের করতে তা এখানে সিলেক্ট করুন।
  • দাগ নাম্বারঃ যদি আপনার জমির দাগ নাম্বারটি থেকে থাকে তাহলে এখানে সিলেক্ট করুন।
  • মালিকানা নামঃ মালিকানা নাম যদি থাকে তাহলে এখানে মেনশন করুন
  • পিতা/স্বামীর নামঃ পিতা/স্বামীর থাকলে তা এখানে নির্বাচন করুন।
  • ক্যাপচা কোড লিখুনঃ এখানে উল্লিখিত ক্যাপসা কোডটির অনুরুপ ফাঁকা জায়গাতে টাইপ করুন।

সর্বশেষে, উপরোক্ত তথ্য গুলো দিয়ে পুরোন করা হলে অনুসন্ধান অপশনে ক্লিক করুন।

দাগ নাম্বার দিয়ে জমির মালিকের নাম

অনেকেই শুধুমাত্র দাগ নাম্বার জেনে থাকেন এই দাগ নাম্বার কে পুঁজি করে অনুসন্ধান করেন জমির মালিকের নাম সম্পর্কে জানার জন্য। সুতরাং আপনি যদি কোন একটি জমির দাগ নাম্বার মনে রাখতে পারেন তাহলে কি জমির মালিকানা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য বের করার সক্ষম হবেন। এই বিষয়টি সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে এখানে সুতরাং আমাদের সাথে থেকে আপনি আপনার প্রয়োজনীয় তথ্যটি সংগ্রহ করতে পারবেন আশা করি সময় নিয়ে আমাদের সাথে থাকবেন। তবে এক্ষেত্রে একটি বিষয় অবশ্যই মনে রাখতে হবে আপনার প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো অবশ্যই সঠিক ভাবে প্রদান করবেন অন্যথায় আপনাকে তথ্য দেখানো হবে না।

ই পর্চা সার্টিফাইড কপি সংগ্রহ

আপনি কি জানেন বাড়িতে বসেই সার্টিফাইড কপি সংগ্রহ করা সম্ভব। সুতরাং আপনি যদি ইপদ 4 সার্টিফাইড কপি বাড়ি থেকে উত্তোলন করতে চান এক্ষেত্রে আপনাকে আমাদের দেওয়া পদক্ষেপ অনুযায়ী চলতে হবে। সার্টিফাইড কপি গুলো আপনি নিজে উত্তোলন করতে ব্যর্থ অথবা সময়ের অভাবে ব্যর্থ হলে আপনি ডাক যোগাযোগের মাধ্যমে কথা বলে নিতে পারেন এক্ষেত্রে আপনি বাড়িতে বসেই সার্টিফাইড কপি পেতে সক্ষম হবেন। অনেকেই এই বিষয়টি নিয়ে চিন্তিত থাকে এক্ষেত্রে আমরা বিষয়টি এখানে উল্লেখ করেছি।

বাড়িতে থেকে সার্টিফাইড কপি সংগ্রহ করুন

বাড়িতে থেকে সার্টিফাইড কপি সংগ্রহের জন্য অনেকেই এর নিয়ম সম্পর্কে জানতে আগ্রহী হয়ে থাকে। খুব কম সংখ্যক মানুষ এই নিয়ম সম্পর্কে জানেন এ ক্ষেত্রে এর সুবিধা ও এই বিষয়ে বিস্তারিত জ্ঞান অর্জনের মাধ্যমে অনেকেই সুবিধা গ্রহণ করতে আগ্রহী হয়ে থাকে। এমন ব্যক্তিদের উদ্দেশ্যে আমরা গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য প্রদান করবো এখানে যার মাধ্যমে আপনারা বাড়িতে থেকেই সার্টিফাইড কপি সংগ্রহ করতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে আপনাকে ডাক যোগাযোগের সাথে কথা বলে দিতে হবে এক্ষেত্রে তারা সরাসরি আপনার বাড়িতে গিয়ে আপনাকে সার্টিফাইড কপি অর্থাৎ এই পোর্ট সার্টিফাইড কপি প্রদান করে আসবেন। আশা করছি বিষয়টি বুঝতে পেরেছেন এক্ষেত্রে আপনি অবশ্যই ডাকযোগের সাথে সরাসরি কথা বলে নেবেন আশা করি আপনি বিষয়টির মাধ্যমে উপকৃত হবেন।

ভূমি সেবায় যোগাযোগ

ভূমি সেবা যোগাযোগের জন্য অনেকেই হটলাইন নাম্বার বা যোগাযোগ নাম্বার লিখে অনুসন্ধান করে থাকেন। তাই আজকের পোস্টটিতে আমরা আপনাদের যাবতীয় সমস্যার সমাধান হিসেবে একটি হটলাইন নাম্বার প্রদান করব যেখানে কল করে আপনি ভূমি সেবা সংক্রান্ত সকল তথ্য সম্পর্কে জানতে পারবেন। জমিসংক্রান্ত অনেক পরামর্শের প্রয়োজন হয়ে থাকে এই পরামর্শগুলো আপনি এখান থেকে পেয়ে যাবেন |

সুতরাং এই পোস্টটি আপনার জন্য অধিক গুরুত্বপূর্ণ আমাদের সাথে থেকে আপনার প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো সংগ্রহ করতে পারবেন আমরা সরাসরি আপনাদের হটলাইন নাম্বার দিয়ে সহযোগিতা করব যা অনেকের জানা নেই। অনেক ব্যক্তি রয়েছেন এখন পর্যন্ত এই সেবা সম্পর্কে জানেন না জানেন না ভূমিসেবার হটলাইন নাম্বার রয়েছে যেখানে কল করে আপনার সমস্যার সমাধান পেতে পারেন। নিচে ভূমি সেবা হটলাইন নাম্বার প্রদান করা হয়েছে।

Online e-porcha

What is online porcha? Stay tuned for more details on what it does. We are working to establish the subject-based discussion to give you the right advice. At present many people search for information about this e-porcha of land service. However, there are very few websites that provide accurate information on this subject. We are working to provide the right advice to all these people.

Before we learn about porcha online we need to know what stage it is. Porcha is basically a number that is used to verify land ownership. Everyone knows that this number makes land verification process easier. It is also very easy to verify land ownership online through e-porcha. I hope you understand the issue and know how important it is that we all know the issues related to land. If necessary, tell us carefully once again from the beginning of our post, hopefully you will know everything.

E porcha bd

ই-পর্চা বাংলাদেশ। বাংলাদেশ থেকে অনলাইন পর্চা যাচাই করা সম্ভব । এক্ষেত্রে আপনাকে অনলাইন পর্চা লগইন সহ অনলাইন পর্চার আবেদন সম্পর্কে জানতে হবে যা আমরা আমাদের আলোচনার মাধ্যমে বিস্তারিতভাবে তুলে ধরেছি। সুতরাং আপনারা যারা বাংলাদেশ অনলাইন পর্চা ডাউনলোড করতে চান বাসায় বসে আপনাদের মোবাইল অথবা কম্পিউটার থেকে কিংবা এটি দেখতে আগ্রহী তারা আমাদের আলোচনার সাথে থেকে এই বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করুন এবং অনলাইন আবেদন সহ অনলাইনের বিষয়ে বিস্তারিত জানুন। আমাদের ওয়েবসাইট থেকে এ বিষয়ে সমস্ত তথ্য সম্পর্কে জানতে পারবেন বলে আশা রাখছি আমরা ই-পর্চা সম্পর্কিত সমস্ত বিষয় তুলে ধরেছি আজকের আলোচনায় বিষয়ভিত্তিক আলোচনা আপনাদের সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি আপনারা যারা পচা সম্পর্কিত অনলাইন ভিত্তিক তথ্য সম্পর্কে জানার জন্য আগ্রহী তাদের কাছে একটি অনুরোধ আপনারা সম্পূর্ণ পোস্টটি আগ্রহের সাথে পড়ুন।

ই পর্চা ডাউনলোড

দেশে ও দেশের বাইরে থেকে অনেকেই ই পর্চা ডাউনলোড করতে আগ্রহী হয়ে থাকেন। এছাড়াও অনলাইন ভিত্তিক সেবা হয় যে কোন জায়গা থেকে যে কোন মুহূর্তে পর্চা ডাউনলোড করার সুবিধা রয়েছে। অনেকেই এখন পর্যন্ত এই সুবিধাগুলো সম্পর্কে জানে না এ ক্ষেত্রে সুবিধা সম্পর্কিত তথ্যগুলো দেওয়ার পাশাপাশি কিভাবে আপনি অনলাইন থেকে যেকোনো স্থান থেকে কিভাবে ডাউনলোড করবেন সে বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা রয়েছে। যেহেতু এটি একটি অনলাইন সেবা এক্ষেত্রে আপনি যেকোন দেশ থেকে তা গ্রহণ করতে পারেন। সুতরাং আমাদের দাও তথ্য অনুসারে অনলাইন থেকে পয়সার জন্য আবেদন করতে পারেন আবেদন প্রক্রিয়া টি নিচে তুলে ধরা হয়েছে । খুব সহজেই ই-পর্চা লগইন করতে www.eporcha.gov.bd ওয়েবসাইটটি প্রদর্শন করুন আপনারা চাইলে এই লিঙ্ক এ ক্লিক করে ই-পর্চা ওয়েবসাইটে লগইন করে নিতে পারেন।

ই-পর্চা ও ডি আর আর সিস্টেম

অ্যাসিস্ট্যান্ট সম্পর্কিত বিষয়ে জানতে আগ্রহী অনেকেই এক্ষেত্রে আমরা এখানে এ বিষয়টি উল্লেখ করেছি আশা করছি আপনারা যারা এ বিষয়ে সম্পর্কে জানার জন্য অনলাইনে অবস্থান করছেন তারা এখান থেকে এ বিষয়ে সম্পর্কে জানতে পারবেন। এক্ষেত্রে একটি বিষয়ে আপনাদের মাঝে প্রকাশ এর প্রয়োজনীয়তা রয়েছে বলে জানানো হচ্ছে খতিয়ান অনলাইন কপি দিয়ে আপনি জমির মালিকানা যাচাই এর পাশাপাশি ব্যবহারিক কাজ সেরে নিতে পারেন। সুতরাং খতিয়ানের কপি অর্থাৎ খতিয়ান থেকে কিছু তথ্য সংগ্রহ করে সে তথ্য দিয়ে আপনি জমির মালিকানা যাচাই করতে সক্ষম হবেন। তবে আইন-আদালতের বিষয়ে আসলে আপনাকে অবশ্যই খতিয়ানের সার্টিফাইড কপির প্রয়োজন হবে।

land gov bd

এটি হচ্ছে ভূমি মন্ত্রণালয়ের একটি অফিসিয়াল ওয়েবসাইট। অনেকেই এই ওয়েবসাইটটি কে সরকারি ওয়েবসাইট বলে জানিয়ে থাকেন। যাই হোক না কেন এখান থেকে আপনি ভূমি মন্ত্রণালয় কর্তৃক বিভিন্ন সহযোগিতা পেতে পারেন বিভিন্ন সেবা গ্রহণ করতে পারেন যা ভূমি মন্ত্রণালয় থেকে প্রদান করা হয়ে থাকে। খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি সাইট হচ্ছে এটি সুতরাং আপনারা যারা এই গুরুত্বপূর্ণ সাইটের বিষয়ে বিস্তারিত জানতে ইচ্ছুক তারা সরাসরি এই ওয়েবসাইটটিতে ভিজিট করতে পারেন। এর জন্য আপনি গুগলে গিয়ে এই ওয়েবসাইটে নামটি লিখে অনুসন্ধান করতে পারেন আশা করি আপনি এর মাধ্যমে ওয়েবসাইটে ভিজিট করতে পারেন। এই ওয়েবসাইটটি পেজে গেলে আপনি জানতে পারবেন এর সেবাসহ বিস্তারিত সকল তথ্য সুতরাং প্রয়োজনীয় অনেক ক্ষেত্রেই ভূমিসেবার জন্য ওয়েবসাইটে ভিজিট করতে পারেন।

ভূমি সেবার হটলাইন নাম্বার

অনেকেই রয়েছেন যারা জমি সংক্রান্ত বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হয়ে ভূমি সেবার সহযোগিতা নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেন। এক্ষেত্রে সরাসরি তাদের কাছে গিয়ে সহযোগিতা নেওয়া সম্ভব নয় এক্ষেত্রে অনেকেই মোবাইল কলের মাধ্যমে সেবা নিতে আগ্রহী। এক্ষেত্রে তাদের প্রয়োজন ভূমি সেবা হটলাইন নাম্বার। এ কারণেই আমরা এই পোস্টের মধ্যে ভূমি সেবা হটলাইন নাম্বার দিয়ে আপনাদের সহযোগীতা করছে। ভূমি সংক্রান্ত বিভিন্ন সমস্যার সমাধান পেতে কল করুন ভূমি সেবা হটলাইন নাম্বারে। হট লাইন নাম্বার হচ্ছে – 16122

আশাকরি ই-পর্চা সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য দিয়ে আপনাদের সহযোগীতা করতে পেরেছি। এছাড়াও জমি সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ের উপর জানতে আগ্রহী ব্যক্তিগণ, উপরে কিছু লিংক তুলে ধরা হয়েছে সেগুলোতে ক্লিক করে সেই বিষয়গুলো সম্পর্কে জানতে পারে। এতটা সময় আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ। এছাড়াও এই বিষয় সংক্রান্ত কোন প্রশ্ন থাকলে আমাদের কমেন্ট বক্স এর মাধ্যমে জানিয়ে দিতে পারেন।

Back to top button
Close