Skip to content

উকুন দূর করার ঔষধ । মাথার উকুন দূর করার সহজ উপায়

উকুন দূর করার সহজ উপায়

উকুন দূর করার ওষুধ ও উপায়। প্রিয় পাঠক বন্ধু আজকের আলোচনায় আমরা এ বিষয়ে সম্পর্কে আপনাদের সুষ্ঠু ধারণা দেবো এক্ষেত্রে আমরা আশা রাখি আমাদের দেওয়া উপায় অবলম্বন করে আপনি অবশ্যই আপনার মাথার উকুন দূর করে নিতে পারবেন খুব সহজেই। বর্তমান সময়ে এই সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন শত শত নারী। খুব কম বয়সের মেয়ে থেকে শুরু করে বৃদ্ধ বয়সের মহিলা প্রায় অনেকেই এই সমস্যা দেখা দিয়েছে। এক্ষেত্রে খুব অস্থির অনুভুতি তৈরি হয়ে থাকে তাইতো অনেকেই অনলাইন থেকে এর সমাধান খুঁজে থাকেন এক্ষেত্রে আমরা আজকের আলোচনার মাধ্যমে আপনাদের সঠিক পদ্ধতিতে উকুন দূর করার উপায় সম্পর্কে জানাব আপনাদের।

সুতরাং আপনারা যারা অনলাইন থেকে উকুন দূর করার উপায় সম্পর্কে জানতে আগ্রহী এ ক্ষেত্রে এমন ব্যক্তিগণ আজকের আলোচনার মাধ্যমে উকুন দূর করার ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন। সুতরাং আপনার মাথায় উকুন থাকলে এই পোস্টটি প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ সহকারে পড়ুন আশা করছি আপনাকে গুরুত্ব পূর্ণ এই তথ্যগুলো দিয়ে আপনার মাথার উকুন তাড়াতে সহযোগিতা করতে সক্ষম হব আমরা।

উকুন দূর করার ঘরোয়া উপায়

অনেকেই উকুন দূর করার ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে জানতে আগ্রহী এক্ষেত্রে আমরা এমন ব্যক্তিদের সহযোগিতার লক্ষ্যে বেশ কিছু মূল্যবান তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করব আপনাদের। সত্যিকার অর্থে ঘরোয়া উপায়ে উকুন দূর করা সম্ভব তবে পুরোপুরি নয় । এক্ষেত্রে আপনাদের যাদের মাথায় উকুন প্রচুর পরিমাণে অর্থাৎ বেশি রয়েছে তারা ঘরোয়া উপায়ে অনুসরণ করে আপনার মাথার উকুন অনেকটা কমিয়ে দিতে পারে। তবে কিছু ক্ষেত্রে অনেকের সকল উকুন দূর হতে লক্ষ করেছি আমরা আশা রাখছি আপনিও সঠিক পদ্ধতি অবলম্বন করে আপনার মাথার উকুন একেবারেই শেষ করে নিতে পারবেন তবে একেবারেই শেষ না হলেও আপনি অবশ্যই এর মাধ্যমে উপকৃত হবেন। সুতরাং নিচে উকুন দূর করার ঘরোয়া পদ্ধতি তুলে ধরা হলো।

নিমপাতা

নিমপাতা প্রাকৃতিক উপায়ে রোগ চিকিৎসা, ইউনানি, হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয়। বহুগুণের এই নিমে আছে- অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টিভাইরাস, এনালেজিক, অ্যান্টিপাইরেটিক, অ্যান্টিসেপ্টিক, অ্যান্টিমাইক্রবাল, অ্যান্টিডায়াবেটিক, অ্যান্টিফাঙ্গাল এবং রক্ত বিশুদ্ধকরণ উপাদান। উকুন তাড়াতে ব্যবহার করতে পারেন নিমপাতা।

পেঁয়াজের রস দিয়ে উকুন তাড়ানোর নিয়ম

এ ক্ষেত্রে এটি খুবই কার্যকরী একটি পদ্ধতি ইতিমধ্যেই এ পদ্ধতিটি বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে এক্ষেত্রে আপনাকে কোন প্রকার খরচ করতে হবে না শুধুমাত্র দরকার হবে যেটি সবার বাড়িতেই সব সময় থেকে থাকেন। তো চলুন জেনে নেওয়া যাক কিভাবে পিয়াজ দিয়ে উকুন তাড়ানো সম্ভব। এজন্য আপনাকে বেশ কয়েকটি ওষুধ ভালো ভাবে ছিলি ধুয়ে নিতে হবে এরপর কুচি করে কেটে রস করে নিতে হবে। নির্দিষ্ট পরিমাণে রস করুন যাতে করে আপনার মাথার চুলের গোড়ালি ভালোভাবে বেঁচে যায় এ রস এর মাধ্যমে।

রস ও সামান্য কৌশলে সেগুলো ভালোভাবে মাথায় লাগিয়ে নিতে হবে। চেষ্টা করবেন সঠিকভাবে রস গুলো মালিশ করে লাগানোর জন্য দেখবেন চুলের গোড়ালিতে ভালোভাবে পেঁয়াজের রস লেগেছে কিনা। ভালোভাবে লাগানোর পরবর্তী সময়ে কিছুক্ষণ সময় কাপড় কিংবা অন্য যে কোন উপায়ে চুল ঢেকে রাখার জন্য বলা হচ্ছে। এবং এর কিছুক্ষণ পরে হালকা পরিমাণে গরম পানি দিয়ে পুরো মাথা ভালোভাবে ধুয়ে ফেলুন এবং মাথা ধোয়ার পরবর্তী সময়ে চিরুনি দিয়ে চুল আঁচড়ে নিন এক্ষেত্রে উকুন দূর হবে অবশ্যই। দীর্ঘ সময় ধরে চুল আঁচড়ে নিন এক্ষেত্রে ধীরে ধীরে আপনার উকুনগুলো বাইরে বের হতে সক্ষম হবে এভাবে সপ্তাহে দুই থেকে ৩ দিন ব্যবহার করতে পারেন এক্ষেত্রে দেখা যাবে কিছুদিনের মধ্যেই আপনার মাথার উকুন বেশ কমতে শুরু করেছে এবং এভাবে চলতে থাকলে বেশ কিছুদিন পর আপনার মাথা উকুন মুক্ত হবে।

উকুন দূর করার ওষুধ

আপনারা যারা উকুন দূর করার জন্য চিকিৎসকের পরামর্শ কিংবা অনলাইন অনুসন্ধানের মাধ্যমে চিকিৎসা গ্রহণ করতে আগ্রহী কোন ধরনের ওষুধ কিভাবে ব্যবহার করবেন কিভাবে মাথার উকুন দূর করবেন এই বিষয় নিয়ে চিন্তিত তাদের সহযোগিতার লক্ষ্যে আজকের আলোচনায় আমরা উকুন দূর করার কিছু ওষুধ সম্পর্কে জানাব আপনাদের। সুতরাং এই ওষুধগুলো ব্যবহারের মাধ্যমে আপনি অবশ্যই আপনার মাথার উকুন দূর করে নিতে পারবেন। বর্তমান বাজারে অনেক উকুন নাশক ওষুধ রয়েছে তবে সকলের সমান ভাবে কার্যকর নয়। এক্ষেত্রে ব্যবহারকারীগণ বুঝে উঠতে পারেনা কোন ওষুধ টি ব্যবহার করবেন কোনটি তাদের জন্য ভালো হবে। এক্ষেত্রে আমরা আজকের আলোচনায় আপনাদের পরামর্শের জন্য কয়েকটি ওষুধের নাম প্রদান করেছি যেগুলো আপনি ব্যবহার করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: