শিক্ষা ও জীবন

কষ্টের গল্প | কষ্টের ভালোবাসার ছোট গল্প

কষ্টের ছোট গল্প ২০২২। আপনি কি অনলাইন থেকে কষ্টের গল্প গুলো পড়ার জন্য আমাদের ওয়েবসাইটটিতে এসেছেন। তাহলে সঠিক ওয়েবসাইটে এসেছেন এখানে আমরা কষ্টের ছোট গল্প গুলো দিয়ে রাখব। অনেকেই রয়েছেন যারা কষ্টের ছোট গল্প গুলো পড়তে পছন্দ করেন। এই ধরনের ব্যক্তিদের জন্য এই পোস্টটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সুতরাং এখানে আমরা আপনাদের জন্য বিশেষ কিছু কষ্টের গল্প নিয়ে উপস্থিত হয়েছি যেগুলো বাস্তব জীবনের সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ রয়েছে কিছু কিছু রয়েছে যেগুলো তৈরি করা। অনেকেই রয়েছে এ ধরনের গল্প গুলো পছন্দ করেন পড়ার ক্ষেত্রে আবার অনেকেই ইমেইলের মাধ্যমে অন্যকে পাঠিয়ে থাকেন। অথবা ফেসবুক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে এ ধরনের কষ্টের গল্প গুলো অন্যের মাঝে মাঝে শেয়ার করেন।

আপনি যে ক্ষেত্রেই ব্যবহার করেন না কেন এই গল্প গুলো আপনাদের কাছে খুবই ভালো লাগবে খুব বেশি কষ্টের গল্প রয়েছে এই পোস্টে। আমরা বেশ কিছু গল্প আপনাদের জন্য নির্বাচন করেছি। আপনাদের সকল গল্প করার জন্য বলা হচ্ছে।

কষ্টের গল্প ২০২২

আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছি নতুন কিছু কষ্টের গল্প যেগুলো হতে চলেছে খুবই কষ্টের, হৃদয় ভাঙ্গা মনের কষ্ট, বিরহের কষ্ট ,জীবনের ব্যর্থতার কষ্ট, সকল কষ্ট সমৃদ্ধ আজকের এই গল্পগুলো আপনাদের জন্য। আপনি যদি কষ্টের গল্প পড়তে চান তাহলে আমাদের দেওয়া কষ্টের গল্প গুলো পড়তে পারেন। আশা করি আমাদের যাওয়া কষ্টের গল্প গুলো আপনাদের ভালো লাগবে। এছাড়াও আমাদের কষ্টের গল্প গুলো আপনারা সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করতে পারেন। এছাড়া আমাদের দেওয়া কষ্ট গুলো আপনাদের সকল ক্ষেত্রে ব্যবহারে অনুমোদন দেওয়া হল।

কষ্টের গল্প 1

তার সাথে পরিচয় ৬ মাস।
তাকে আমার ভালো লাগছে, তাই সরাসরি বিয়ের প্রস্তাব দিলাম। আমার এলাকার মেয়ে কিন্তু পরিচয় ঢাকাতে।
বিয়েতে মেয়ে ও তার ফ্যামেলী সবাই রাজি।
তার মা আমাকে দেখে পছন্দ করছে মেয়ের জামাই হিসেবে। আমার থেকে ওয়াদা নিয়েছে যাতে তার মেয়েকে কষ্ট না দেই।
করোনার মধ্যে ঢাকায় সে আটকা পরে ছিল। আমি গ্রামে চলে আসি।
তারপর থেকে আমার সাথে যথারীতি খারাপ ব্যবহার। ভাবলাম বাসায় বন্ধী তাই মেজাজ খিটখিটে হয়ে গেছে।
যোগাযোগ বন্ধ, আমি অনেক ট্রাই করছি যোগাযোগ করার। সব জায়গা থেকে ব্লক। একদিন অন্য নাম্বার দিয়ে ট্রাই করলাম, তাকে পেলাম জানতে পারলাম সে গ্রামে চলে আসছে। ১৫ দিন হয়ে গেছে।
কষ্ট পেলেও কিছু বলি নাই।
তার সাথে মিট করলাম। রোজার
ঈদের ২ দিন আগে, তাকে একটু ঘুরলাম। সব ঠিকঠাক হল।
সে এবার এসএসসি পরিক্ষা দিল।
তার রেজাল্ট এর দিন ইমারজেন্সি ঢাকায় আসতে হয় আমার ব্যবসার কাজে।
তারপর আর বাড়ি যাওয়া হয় নাই।
তার মা জানে আমি বাড়িতে, তাই প্রায় বাসা থেকে আমার সাথে ঘুরতে যাবে বলে বের হয়। কিন্তু আমি ঢাকায়। আমার থেকে ১০০০- ২০০০ টাকা নিত। ভাইয়ার জম্মদিন, বন্ধুর জম্মদিন, আম্মুর মেরিজ এনেভাসারি বলে টাকা নিতে নিতে ২০০০০ টাকা পাওয়না হয়ে গেছি।
একদিন অন্য ছেলের সাথে ঘুরতে বের হয়।
তার মা জানতে পারে।
তখনই জামেলা শুরু, মেয়ে আমাকে বার বার রিকোয়েস্ট করে, আমি যেন স্বীকার করি যেন তার সাথে আমি ছিলাম।
এই বিষয় গুলো অনেক কথা কাটাকাটি হয়।
তার পর শেষ আমার প্রেম-বিয়ে।
এই মেয়ে ক্লাশ ৮ম প্রেম করছে, তাও এক বছর।
তবে এইটুকু বুজলাম মেয়েদের সাথে প্রেম করার সময়, মন দেওয়ার আগে ধ** দিতে হয় আগে।

কষ্টের গল্প 2

মেয়ে: হ্যালো! কেমন আছো?
ছেলে: কে বলছেন?
মেয়ে: আমি বলছি।
ছেলে: আমি টা কে ?
মেয়ে: আমি, তুমি আমাকে চিনতে পারছোনা ?
ছেলে: নাম না বললে কিভাবে চিনবো ?
মেয়ে: তুমি আমার কন্ঠটাও ভুলে গেছ ? এত কথা বলেছি আমরা । আমি বিশ্বাস করিনা তুমি আমাকে চিনতে পারোনি । আমার উপর রাগ করে বলছো তাই না।
ছেলে: কথা বললেই কি কন্ঠ চেনা যায় ? পাশে থাকলেই কি মানুষ চেনা যায়? ভালবাসি বললেই কি ভালবাসা যায় ? আর রাগ,কিসের রাগ ?
মেয়ে: এতদিন পরে কথা হচ্ছে, তুমি আজও এমন কঠিন করে কথা বলবে? এখনো আমায় ক্ষমা করতে পারোনি না ?
ছেলে: সহজ করে কথা বললে কি হবে ? আর তুমি তো কোন পাপ করোনি, ক্ষমাটা আসছে কোথা থেকে ?
মেয়ে: পাপ ! আমি কত বড় অপরাধ করেছি সে তো আমি জানি । যার জ্বালায় এখন জ্বলে পুড়ে মরছি । কেমন আছো অাকাশ ?
ছেলে: যেমন থাকার কথা ছিল ।
মেয়ে: এখনো যে জেগে আছো ! ঘুমাওনি কেন?
ছেলে: ঘুম…! ঘুম যার কাছ থেকে কিনতাম সে তো মারা গেছে কয়েকমাস হল । তাই আর ঘুমানো হয়না ।
মেয়ে: হ্যা ঠিকই বলেছো, আমি তো মারাই গেছি । কি করো এত রাতে?
ছেলে: বেলকনিতে বসে সিগারেট খাচ্ছি।
মেয়ে: তুমি আবার সিগারেট ধরেছো ? সিগারেট ছাড়ার জন্য যে আমার হাতে হাত রেখে কথা দিয়েছিলে সে কথা ভুলে গিয়েছো ?
ছেলে: সবাই কি সব কথা রেখেছে ? কেউ একজন কথা দিয়েছিল সিগারেট ছাড়লে তিনবেলা নিয়ম করে চুমু খাবে । কথা দিয়ে কথা রাখেনি তবে আমি কেন কথা রাখবো?
মেয়ে: অাচ্ছা আমি কেমন আছি সেটা জিজ্ঞেস করলে না ?
ছেলে: নিশ্চই ভাল আছো । ভাল থাকার জন্যই তো আমার থেকে দূরে সরে গিয়েছ।
মেয়ে: হ্যাঁ,ভাল আছি, অনেক বেশিই ভাল আছি আমি। এত সুখে আছি যা কল্পনাও করতে পারবেনা তুমি । সারা শরীরে আজ ভালবাসার চিহ্ন।
ছেলে: ভালবেসে বিয়ে করেছ ভাল থাকাটাই স্বাভাবিক । আমি তো কখনোই ভালবাসতে পারিনি, সুখ দিতে পারিনি ।
মেয়ে: তুমি আমাকে জীবনেও বুঝলেনা । আমি কিসের জন্য তোমার কাছ থেকে দূরে সরে গিয়েছি সে শুধুই আমি জানি ।
ছেলে: জানি কেন আমায় দূরে ঠেলেছিলে, অতটুকু বোঝার ক্ষমতা আমার আছে । যাকে পাগলের মত ভালবেসেছি তাকে বুঝতে পারবো না।
মেয়ে: আজ কত তারিখ মনে আছে তোমার?
ছেলে: দিন তারিখ মনে রেখে কি হবে।
মেয়ে: আজ সেই দিন তিন বছর আগের যেই দিনটাতে তুমি আমাকে ভালবাসি কথাটি বলেছিলে । তুমি সেই দিনটিও ভুলে গেছ?
ছেলে: মানুষই মানুষকে ভুলে যায়, নিজেই নিজেকে ভুলে যায়, আবার দিন মনে রাখবো কি করে ।
মেয়ে: তুমি মিথ্যে বলছো, তুমি কিছুই ভুলে যাওনি। আমি তোমাকে চিনি অর্ক অনেক ভালভাবেই চিনি । ভালবেসেছিলাম, এখনো ভালবাসি । শুধু পরিস্থিতি দূরে যেতে বাধ্য করেছে । তুমি শুধুশুধু আমায় ভুল বুঝেছো । আমি জানি আমি অপরাধ করেছি কিন্তু আমার কিছুই করার ছিলনা । আমার বিয়ে করাটা জরুরি ছিল, আর তুমি ঐ মুহুর্তে আমায় বিয়ে করতে পারতে না । জানি তুমি আমায় ঘৃনা করো। কিন্তু মনে রেখ আমি তোমায় আজও ভালবাসি আগের মতই শুধু মাঝে একটা দেয়াল আছে এই আরকি! ছেলে: হাহাহাহাহা। ভালবাসা!!!!! আমার কারো ভালবাসার দরকার নেই।আমি এখন সিগারেট ছাড়া আর কাউকেই ভালবাসিনা।আমি আর সিগারেট দুজনের সংসার খুব ভালই চলছে। এর মাঝে আপনি আর জ্বালাতন না করলেই খুশি হব অর্না ম্যা’ম! good bye —কিছু কথা
Back to top button
Close