Skip to content

জাতীয় শোক দিবসের সেরা সংক্ষিপ্ত বক্তব্য

জাতীয় শোক দিবসের সেরা সংক্ষিপ্ত বক্তব্য

জাতীয় শোক দিবসের সেরা সংক্ষিপ্ত বক্তব্য: প্রিয় পাঠক বন্ধুগণ আপনারা যারা বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সহ অফিস আদালতে রয়েছেন এক্ষেত্রে 15 ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবসে সংক্ষিপ্ত কিছু বক্তব্য প্রদান করতে হবে আর বক্তব্য প্রদানে অভ্যস্ত নয় অনেকেই তাই তারা বক্তব্য দেওয়ার ক্ষেত্রে বেশ সমস্যার সম্মুখীন হয়ে থাকেন। এক্ষেত্রে তারা অনলাইনে অনুসন্ধান করে থাকেন বিষয় ভিত্তিক সংক্ষিপ্ত বক্তব্য পড়ার জন্য। আর আজকের আলোচনায় আমরা এমন ব্যক্তিদের সহযোগিতা করব যারা কিনা বক্তব্য দিতে তেমন অভ্যস্ত নয় এক্ষেত্রে জাতীয় শোক দিবসের উপর ভিত্তি করে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দিতে হবে এক্ষেত্রে আমরা জাতীয় শোক দিবসের উপর ভিত্তি করে সুন্দর কিছু বক্তব্য আপনাদের মাঝে তুলে ধরবো যা আপনি এখান থেকে মুখস্ত করে পরবর্তী সময়ে বক্তব্যে ব্যবহার করতে পারবেন। এটি খুবই সহজ হবে আপনার জন্য এর কারণ বক্তব্যে অভ্যস্ত না থাকলে মনে থাকা বিষয়গুলো মুখে আসেন না। এর কারণ অনেক মানুষের সামনে স্পিকারে কথা বলার অভ্যস্ত নেই অনেকের। এক্ষেত্রে আমরা আমাদের আলোচনার মাধ্যমে এমন ব্যক্তিদের সহযোগিতা করার জন্যই উপস্থিত হয়েছে আজকে।

প্রতিবছর এই দিনটি জাতীয় শোক দিবস হিসেবে উদযাপিত হয়ে থাকে। এক্ষেত্রে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সহ সরকারি বেসরকারি অফিস আদালত গুলোতে এ বিষয়ে আলোচনার ব্যবস্থা করা হয়ে থাকে আবার অনেক ক্ষেত্রে অনেক বড় আয়োজন লক্ষ্য করি আমরা জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতি স্মরণে তার জীবনী সম্পর্কিত রচনা প্রতিযোগিতা কবিতা আবৃত্তিসহ বিভিন্ন বিষয়কে কেন্দ্র করে পুরো দিনটি উদযাপিত হয়ে থাকে প্রথম দিকে রেলি, শোক প্রকাশ এবং এরপর অনেক ক্ষেত্রে লক্ষ্য করা যায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মার মাগফেরাতের জন্য দোয়া । এছাড়াও বিভিন্ন উপায়ে জাতীয় শোক দিবস উদযাপিত হয়ে থাকে।

জাতীয় শোক দিবসের সেরা সংক্ষিপ্ত বক্তব্য

জাতীয় শোক দিবসের সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে আপনাকে স্বাগতম জানাচ্ছি। অনেকেই রয়েছেন যারা বক্তব্যে কথাগুলো সুন্দরভাবে গুছিয়ে বলতে সক্ষম নয় এক্ষেত্রে আমরা একটি বক্তব্য দিয়ে আপনাদের সহযোগিতা করব যেটি মুখস্ত করার মাধ্যমে আপনি উপকৃত হবেন। সকলের এই বক্তব্যটি মুখস্ত করার প্রয়োজন নেই যারা কিনা জাতীয় শোক দিবসে বক্তব্য প্রদান করবে প্রদান করতে হতে পারে এমন ব্যক্তিরাই এটি মুখস্থ করতে পারেন। এক্ষেত্রে অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিতে আপনার কোন সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে না সুন্দরভাবে বক্তব্য প্রদান করতে পারবেন। আপনাদের সহযোগিতায় আমরা সুন্দর একটি বক্তব্য আপনাদের মাঝে তুলে ধরব যেটি অনুষ্ঠানে তুলে ধরার উপযোগী।

আসসালামু আলাইকুম,

আমি সবার আগে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি এ অনুষ্ঠানের উদ্যোক্তা যারা আমাকে এখানে প্রধান অতিথি হবার দুর্লভ সুযোগ করে দিয়েছেন।

আজকের এই অনুষ্ঠানটিতে দুঃখ ভারাক্রান্ত হৃদয়ে আমরা সবাই সমবেত হয়েছি জাতীয় শোক দিবস পালন করার জন্য।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট একদল বিপথগামী সেনা সদস্য আমাদের প্রিয় নেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে তার পরিবার ও আত্মীয়-স্বজন সহ নির্মমভাবে হত্যা করে।  তারা সেদিন মানব ইতিহাসের জঘন্যতম অপরাধ ঘটিয়েছিল।

আজ সে নির্মম হত্যাকাণ্ডের দিনটিকে পালন করার জন্য আমরা দুঃখে ভরা এই শোকাবহ দিনটিতে একসাথে উপস্থিত হয়েছি।

এই দিবসটি বাঙালি জাতি তাদের প্রাণপ্রিয় নেতা বঙ্গবন্ধুর প্রতি আন্তরিক শ্রদ্ধা অভিভূত হয়।

গভীর দুঃখ এবং সমবেদনা নিয়ে তাদের হৃদয় শ্রদ্ধার অশ্রু নিবেদন করে।

সুপ্রিয় ভাই ও বোনেরা,

বঙ্গবন্ধুসহ তার পরিবারের সকল সদস্যদের নিষ্ঠুর হত্যাকাণ্ড বাঙালি জাতির জন্য চরম কলঙ্কময় অধ্যায়।

আপনারা জানেন, শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধুর বলিষ্ঠ নেতৃত্বে বাঙালি জাতি ঐক্যবদ্ধ হয়ে পশ্চিমা হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে জীবন বাজি রেখে সংগ্রাম করে বিশ্বের মানচিত্রে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেছিলেন।

তিনি বাঙালি জাতিকে সাথে নিয়ে গড়ে তুলেছেন আজকের এই বাংলা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: