Skip to content

জামালপুর জেলার সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি 2022

জামালপুর জেলার সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি

আসসালামু আলাইকুম সবাইকে পবিত্র মাহে রমজানের শুভেচ্ছা জানিয়ে শুরু করছি আজকের এই পোস্ট। আমাদের আজকের পোষ্ট টি হচ্ছে জামালপুর জেলার সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি 2022 এর ক্যালেন্ডার।আশা করি আমাদের পোস্ট টি আপনাদের সবার কাজে লাগবে।

জামালপুর জেলার সেহরীর সময়সূচী 2022

পবিত্র মাহে রমজানের রোজা রাখার জন্য সেহরি হচ্ছে একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। সেহরির মাধ্যমে একটি রোজা শুরু হয়। সেহরির সময় সাধারণত আনুমানিক রাত এক-তৃতীয়াংশ অর্থাৎ শেষ রাত থেকে সুবেহ সাদিকের পূর্ব পর্যন্ত ধরা হয়। অনেক সময় সেহরির সময় নির্ধারণ করা অনেক কষ্টকর হয়ে যায় ।এজন্য দরকার সেহরির নতুন ক্যালেন্ডার। তাইতো আমি আপনাদের মাঝে জামালপুর জেলার সেহরির সময়সূচি 2022 এর একটি নতুন ক্যালেন্ডার প্রকাশ করতে যাচ্ছি ।আমার ক্যালেন্ডার টি তে আপনি সেহরির সঠিক সময়সূচী সম্পর্কে জানতে পারবেন।

অনেক সময় ঝড় বৃষ্টির কারণে সেহরির সঠিক সময় জানা অত্যন্ত কষ্টকর হয়ে যায় তখন আমাদের ক্যালেন্ডারটি আপনাদের কে সঠিক সময় জানতে সাহায্য করবে। এছাড়াও আপনি আমাদের ক্যালেন্ডারে প্রতিদিনের মতো আজকের সেহরির শেষ সময় সম্পর্কে জানতে পারবেন এবং ফজরের নামাজের সঠিক সময় সূচি সম্পর্কে ধারণা লাভ করতে পারবেন । আমাদের ক্যালেন্ডারটি একদম নতুন আঙ্গিকের তৈরি করা ক্যালেন্ডার টি তে সব বিষয়ের প্রতি খেয়াল রাখা হয়েছে। নিচে জামালপুর জেলার সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি 2022 এর ক্যালেন্ডার টি প্রকাশ করা হলো:

জামালপুর জেলার ইফতারের সময়সূচি 2022

একটি রোজার জন্য সেহরি যেমন গুরুত্বপূর্ণ অংশ তেমনি ইফতার ও রোজার আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। সেহরির মাধ্যমে যেমন একটি রোজা শুরু হয় তেমনি ইফতারের মাধ্যমে একটি রোজার শেষ হয়। একটি পরিপূর্ণ রোজার জন্য সেহরি ও ইফতার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। সময় মতো সেহরি বা ইফতার করতে না পারলে রোজা নষ্ট হয়ে যায়। আপনাদের যেন এমন কষ্টকর সময়ে না পরতে হয়। তাইতো আমি আপনাদের মাঝে জামালপুর জেলার ইফতারের সময়সূচি 2022 এর সম্পূর্ণ একটি নতুন ক্যালেন্ডার প্রকাশ করবো। আমার ক্যালেন্ডার টি জামালপুর বাসির মুসলিম ভাই বোন বন্ধুদের অনেক কাজে লাগবে । নিচে জামালপুর জেলার সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি 2022 এর ক্যালেন্ডার টি প্রকাশ করা হলো:

বন্ধুরা পবিত্র রমজান মাস মুসলিম জাতির জন্য গুরুত্বপূর্ণ একটি মাস। এ মাসের ফজিলত অত্যন্ত বেশি। রমজান মাসের মাধ্যমে আমরা আল্লাহর কাছে ক্ষমা লাভ করতে পারি এবং এই মাসের ইবাদতের মাধ্যমে আমরা দুনিয়া ও আখিরাতে সফলতা লাভ করতে পারি। তাই আমাদে জীবনে রমজান মাস টি হেলায় দোলায় না কাটিয়ে আল্লাহর ইবাদতের মাধ্যমে কাটিয়ে দেওয়া উচিত ।তাহলে আমরা আমাদের জীবনে পূর্ণতা লাভ করতে পারবো ইনশাআল্লাহ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: