ইসলামিক

নবীদের নামের তালিকা অর্থসহ

নবীদের নামের তালিকা আসসালামু আলাইকুম। আশা করি ভাল আছেন। আজকে আমরা আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছি খুবই সুন্দর একটি পোস্ট। আপনারা ইতিমধ্যে বুঝতে পেরেছেন আজকের পোস্টের বিষয় কি। আজকে আমরা আলোচনা করব নবী ও রাসূলগণের নাম সম্পর্কে। অর্থাৎ এখান থেকে আপনি নবীদের নামের তালিকা সম্পর্কে জানতে পারবেন। এই বিষয়ে জানার জন্য অনেকেই অনলাইনে অনুসন্ধান করেন। কিন্তু আমরা লক্ষ্য করেছি তেমন কোন ভালো ওয়েবসাইট নেই যারা এই বিষয়ে আপনাদের সাহায্য করবে। সুতরাং আমরা এখানে আপনাদের জন্য নবীদের নামের তালিকা প্রদান করবো।

অনেকেই জ্ঞান অর্জনের জন্য এই সকল বিষয়ে জানার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেন। প্রতিটি মুসলমান ভাইদের নবীদের নাম ও তাদের জীবনী সম্পর্কে জানা উচিৎ বলে মনে করি। এতে আমাদের ঈমান বৃদ্ধি পাবে ইসলামের প্রতি বিশ্বাস এবং ভালোবাসা বেড়ে যাবে। তাই আমরা চেষ্টা করব ইসলাম সম্পর্কে জানার এবং নবীদের জীবনী সম্পর্কে জানান।

নবীদের নামের তালিকা

আমরা জানি আপনি নবীদের নামের তালিকা সম্পর্কে জানার জন্য আমাদের ওয়েবসাইটটিতে এসেছেন। আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ ইসলাম সম্পর্কে জানার জন্য। আমরা এই বিষয়ে নিজে জানবো এবং অপরকে জানার জন্য তাগিদ করবো। কুরআনে বর্ণিত ২৬ জন নবী ও রাসূলদের নামের একটি তালিকা আমরা তৈরি করেছি । এবং সেইসাথে নামের পাশে তাদের বৈশিষ্ট্য বা লবক সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত ধারণা দেওয়া হয়েছে। আশা করি আপনারা সকলেই বুঝতে পারবেন নিচের তালিকা থেকে আপনার প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো সংগ্রহ করুন।

ক্রমিক নং নবী ও রাসূলদের নাম বৈশিষ্ট্য/লকব
০১ আদম (আঃ) আদি পুরুষ। লকবঃ আবুল বাশার (মানবজাতির পিতা) সাফী উল্লাহ। (আল্লাহর পছন্দনীয়)
০২ নূহ (আঃ) প্রথম রাসূল ও নবী। লকবঃ নবীউল্লাহ/আল্লাহর নবী
০৩ ইদরীস (আঃ) জ্যোতি বিজ্ঞানের উদ্ভাবক ও শিক্ষাবিদ
০৪ লূত (আঃ) ইবরাহীম (আঃ)-এর ভ্রাতুষ্পুত্র
০৫ হুদ (আঃ) পবিত্র কোরআনে তাঁর নাম ৭ বার এসেছে।
০৬ সালেহ (আঃ) নাকাতুল্লাহ/ আল্লাহর উট তাঁর মুজেযা
০৭ ইবরাহীম (আঃ) লবকঃ খালীলুল্লাহ/ আল্লাহর বন্ধু
০৮ ইসমাঈল (আঃ) লকবঃ জবীহুল্লাহ/ উৎসর্গীকৃত
০৯ ইসহাক (আঃ) ইবরাহীম (আঃ) এর পুত্র; তাঁর নাম পবিত্র কুরআনে ১৭ বার এসেছে।
১০ ইয়াকুব (আঃ) পবিত্র কুরআনে ১২ জায়গায় তাঁর নাম উল্লেখ করা হয়েছে
১১ ইউসুফ (আঃ) তার জীবনের ঘটনাকে “আহসানুল কাসাস” নামে অভিহিত করা হয়েছে।
১২ আইয়ূব (আঃ) দীর্ঘ আঠার বছর অসুস্থাবস্থায় থেকে আল্লাহর পরীক্ষায় পাশ করেন।
১৩ যূল কুফল (আঃ) পবিত্র কুরআনের দুই সূরায় তাঁর নাম এসেছে।
১৪ শোয়াইব (আঃ) সুপ্রসিদ্ধ বক্তা ও মূসা (আঃ)-এর শ্বশুর
১৫ খিজির (আঃ) যার নবুয়ত সম্পর্কে মতভেদ আছে। অনেকেই তাকে নবী ও বলেন।
১৬ মূসা (আঃ) লকবঃ কালীম উল্লাহ/ আল্লাহর সাথে কথোপকথন  কারী
১৭ হারুন (আঃ) মূসা (আঃ) এর ভাই ও সুবক্তা
১৮ দাউদ (আঃ) সুকণ্ঠের অধিকারী ছিলেন
১৯ সুলায়মান (আঃ) জ্বীন ও মানুষের বাদশা ছিলেন।
২০ ইলইয়াস (আঃ) তিনি এখনো পৃথিবীর বুকে জীবিত আছেন।
২১ ইউনূস (আঃ) লকবঃ যুননুন/ মাছওয়ালা
২২ আল ইয়াসা (আঃ) বনী ইসরাঈলের একজন নবী
২৩ যাকারিয়া (আঃ) হযরত ইয়াহইয়া (আঃ) এর পিতা
২৪ ঈসা (আঃ) আলোচিত হয়েছে।
২৫ হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) লকবঃ রুহুল্লাহ/ আল্লাহর প্রদত্ত আত্মা। হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) সর্বশেষ রাসূল ও নবী, আল্লাহর রসূল। সর্বশেষ নবী।
২৬ উযায়ের (আঃ) ইহুদীরা তাকে আল্লাহর পুত্র বলত।
২৭ যুল-কারনায়েন (আঃ) কথিত আছে তাঁর মাথায় দুই দিকে দুটি শিং আছে। বলা হয়ে থাকে তিনি আলেকজান্ডার দিগ্রেট, কিন্তু তা ঐতিহাসিক অনুমান, সঠিক নয়।
২৮ শীস (আঃ) লকবঃ হিবাতুল্লাহ/ আল্লাহরদান
২৯ হউশা (আঃ) লকবঃ মূসা (আঃ) এর বিশিষ্ট সহচর।
৩০ শাময়ূন (আঃ) দাউদ (আঃ) এর পূর্বে তিনি আবির্ভূত হন।
৩১ জারজীস (জজীস) মুজাহিদ ও বনী ইসরাঈলের নবী
৩২ খানূক (আঃ) বনী ইসরাঈলের নবী ছিলেন।
৩৩ দানিয়াল (আঃ) মূসা (আঃ) মৃত্যুর পর তিনি আসেন।
৩৪ হিযক্বীল (আঃ) পবিত্র কুরআনের একটি সূরা তাঁর নামে নামকরণ করেছেন আল্লাহ।

এই পোষ্টের মধ্যে কোথাও ভুল ত্রুটি থাকলে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। এছাড়াও নীচের কমেন্টের মাধ্যমে জানিয়ে দিতে পারেন আমাদের ভুলগুলি আমরা চেষ্টা করব সংশোধন করার। ইসলাম সম্পর্কে আমাদের ওয়েবসাইটটিতে বেশ কিছু পোস্ট রয়েছে আপনারা চাইলে সে সকল পোস্ট করতে পারেন এতে আপনি উপকৃত হবেন। আজকের পোস্টটি এ পর্যন্তই ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন । আল্লাহ হাফেজ।

Back to top button
Close