Skip to content

বিদেশি রেমিটেন্স আনার নিয়ম | কিভাবে বিদেশ থেকে রেমিটেন্স পাঠানো যায়

বিদেশি রেমিটেন্স আনার নিয়ম

বিদেশি রেমিটেন্স আনার নিয়ম। এছাড়াও কিভাবে বিদেশ থেকে রেমিটেন্স পাঠানোর যায় এই বিষয় সর্ম্পকে জানতে পারবেন আজকের আলোচনায়। প্রিয় পাঠক বন্ধুগণ আপনারা যারা এই বিষয়গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহের লক্ষ্যে অর্থাৎ এই বিষয়ে জ্ঞান অর্জনের জন্য অনলাইনে এসেছেন তাদের আমাদের ওয়েবসাইট এর পক্ষ থেকে জানানো যাচ্ছে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন আলোচনায় গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রদান করা হবে আপনাকে। অনেকেই রয়েছেন যারা বিদেশি রেমিটেন্স রান আনার নিয়ম সম্পর্কে জানতে আগ্রহী হয়ে থাকেন এক্ষেত্রে তারা বিভিন্ন প্রয়োজনে এই নিয়ম কে কাজে লাগিয়ে লাভবান হতে চান এক্ষেত্রে আজকের আলোচনার বিষয় সম্পর্কে জানানো হবে আপনাদের পাশাপাশি জানতে পারবেন কিভাবে বিদেশ থেকে রেমিটেন্স পাঠানো যায় যারা বাইরে দেশে থাকেন এক্ষেত্রে নিজের দেশের এমিটেশন পাঠানের চিন্তাভাবনা করছে তারা আজকের আলোচনার সাথে থাকলে বিষয়ভিত্তিক আলোচনা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সম্পর্কে জেনে উপকৃত হবেন। সহজভাবে বলতে গেলে জানতে পারবেন কিভাবে বিদেশ থেকে রেমিটেন্স দেশে পাঠানো যায়।

অনেকেই রয়েছেন যারা বাইরের দেশে কর্মরত রয়েছেন এ ক্ষেত্রে কিভাবে ইমিটেশন পাঠানো হয় এই বিষয়ে সম্পর্কে ধারনা নেই কিংবা অন্য মাধ্যমে ইমিটেশন পাঠিয়ে থাকেন এক্ষেত্রে সহজ উপায় খুঁজছেন যাতে করে খুব সহজেই ও নিশ্চিন্তে রেমিট্যান্স পাঠানো যায় এ ধরনের কোনো মাধ্যম খুঁজছেন তাদের জন্য একটি বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে আলোচনায় আমাদের সাথে থাকলে আপনি অবশ্যই উপকৃত হবে জানতে পারবেন আনার কিংবা পাঠানোর মাধ্যম সম্পর্কে।

লিমিটেশন কি ?

লিমিটেশন সম্পর্কিত বিস্তারিত সকল তথ্য প্রদান করার আগ্রহ রয়েছে তাই তো আমরা আপনাদের এমিটিসন কি এই বিষয়ে সম্পর্কেও জানাবো। এর পরেই আপনি আমাদের উল্লেখিত সকল বিষয় সম্পর্কে জানতে পাবেন যারা বাইরের দেশে আছেন কিংবা বাইরের দেশে যাওয়ার চিন্তাভাবনা রয়েছে এবং ব্যক্তিগণ আগ্রহ নিয়ে পুরোপুরি সম্পূর্ণরূপে অধ্যায়নের মাধ্যমে এই বিষয়গুলো সম্পর্কে সঠিক জ্ঞান অর্জন করতে পারবে। এক্ষেত্রে আমরা বলতে পারি সহজ ভাষায় যারা বিদেশ থেকে টাকা পাঠায় তাদেরকে রে মিটার বলা হয় এবং তাদের প্রদানকৃত টাকা গুলোকে আমরা রেমিটেন্স বলে থাকি। আশা করছি বিষয়টি বোঝাতে পেরেছি নিজে এই বিষয়ে আরও অনেক তথ্য প্রদান করা হবে যেগুলো অবশ্যই জানার প্রয়োজন রয়েছে।

কয় ভাবে রেমিট্যান্স পাঠানো যায়

উপরোক্ত আলোচনার মাধ্যমে আমরা জানতে পেরেছি ইরিটেশন কি এক্ষেত্রে আমরা জানবো এভাবে পাঠানো যায় অবশ্যই এই বিষয়গুলো সম্পর্কে জানার প্রয়োজন রয়েছে এক্ষেত্রে আমরা লেনদেনের ক্ষেত্রে সুবিধা ভোগ করতে সক্ষম হব শ্রোতা আপনারা যারা এই বিষয় সম্পর্কে জানেন না তারা নিচে থেকে জেনে নিন পাঠানোর প্রকারভেদ কয় ভাবে পাঠাতে পারেন ।

যারা বাংলাদেশ থেকে বিদেশে থাকেন সেই সমস্ত রেমিটারা দেশে দুইভাবে রেমিটেন্স প্রমাণ করতে পারবেন. যেমন:

১. সরাসরি এজেন্ট ব্যাংকিং অ্যাকাউন্ট নাম্বারে

২. পিন নাম্বারের মাধ্যমে

কিভাবে বিদেশ থেকে রেমিট্যান্স পাঠানো যায়

এক্ষেত্রে আমরা আপনাদের মাঝে তুলে ধরব কিভাবে বিদেশ থেকে রিপিটেশন পাঠানো যায় এই বিষয় সর্ম্পকে আপনারা যারা এ বিষয়ে সম্পর্কে জানতে আগ্রহী হয়ে অনলাইনে এসেছে তারা এখান থেকে এ বিষয়ে সম্পর্কে জানতে পারেন ।খুব সহজ একটি প্রক্রিয়া আপনি চাইলে খুব সহজেই যেকোন দেশ থেকে রেমিটেন্স পাঠাতে পারবেন। পুরো প্রক্রিয়াটি সহজ ও ছোট একটি প্রক্রিয়া যা আপনি এখান থেকেই শিখে নিতে সক্ষম হবেন পাঠানোর পদ্ধতি তুলে ধরা হলো ।

১.অ্যাকাউন্ট নাম্বার যেমন: (এজেন্ট ব্যাংকিং একাউন্ট নাম্বার ১৩ ডিজিট)

২. ব্যাংকের নাম (ডাচ বাংলা ব্যাংক)

৩. টাকার পরিমান

একাউন্টধারী কিভাবে রেমিটেন্স টাকা উত্তোলন করবেন

এক্ষেত্রে আপনার প্রদানকৃত ইমিটেশন অর্থাৎ টাকা কিভাবে একাউন্টধারী উত্তোলন করবেন এই বিষয় সম্পর্কে জানার জন্য অনেকেই আগ্রহী হয়ে থাকেন। এর কারণ এই প্রক্রিয়া সম্পর্কে অনেকেই জানে না, তাই এরা এই টাকা উত্তোলনের বিষয়টিকে অনেক জটিল ও কঠিন মনে করে থাকেন তাই এই পুরো প্রক্রিয়াটিই নিচে তুলে ধরা হচ্ছে এক্ষেত্রে আপনি বুঝতে পারবেন কিভাবে বিদেশ থেকে প্রতারিত ইমিটেশন একাউন্টধারী তুলবেন তোলার প্রক্রিয়া প্রদান করা হচ্ছে।

  • অ্যাকাউন্টধারী কিভাবে এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেট থেকে টাকা উত্তোলন করবেন
  • একাউন্টধারী প্রথমে টাকা উত্তোলন করার জন্য যেকোনো ডাচ-বাংলা ব্যাংক কর্তৃক মনোনীত আউটলেট পয়েন্টে যাবেন
  • একাউন্টধারী টাকা উত্তোলনের জন্য যেকোনো ডাচ-বাংলা ব্যাংক কর্তৃক আউটলেট পয়েন্টে যাবেন এবং টাকা উত্তোলনের কথা বলবেন
  • আউটলেট টেলার অ্যাকাউন্টধারীর কাছ থেকে এনআইডি জমা নিবেন
  • এজেন্ট ব্যাংকিং এর ট্রেলার এনআইডি বা পিন নাম্বারটি ডিবিবিল সিস্টেম এ আপলোড করবেন
  • ডিবিবিএল সিস্টেম অ্যাকাউন্টধারীর তথ্য যাচাই করবেন এবং সুবিধাভোগীকে অর্থ প্রেরণের জন্য তহবিল থেকে অর্থ কেটে আউটলেট একাউন্টে স্থানান্তর করবেন
  • আউটলেট টেলার সিস্টেম যাচাই পূর্বক অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা প্রদান করবেন এবং স্বাক্ষর নিবেন
  • তারপর একাউন্টধারী এবং আউটলেট টেলার ও ভাই মেসেজের মাধ্যমে কনফার্মেশন লেনদেন নিশ্চিত হবেন

অ্যাকাউন্টধারী কিভাবে এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেট থেকে টাকা উত্তোলন করবেন

  • একাউন্টধারী প্রথমে টাকা উত্তোলন করার জন্য যেকোনো ডাচ-বাংলা ব্যাংক কর্তৃক মনোনীত আউটলেট পয়েন্টে যাবেন
  • একাউন্টধারী টাকা উত্তোলনের জন্য যেকোনো ডাচ-বাংলা ব্যাংক কর্তৃক আউটলেট পয়েন্টে যাবেন এবং টাকা উত্তোলনের কথা বলবেন
  • আউটলেট টেলার অ্যাকাউন্টধারীর কাছ থেকে এনআইডি জমা নিবেন
  • এজেন্ট ব্যাংকিং এর ট্রেলার এনআইডি বা পিন নাম্বারটি ডিবিবিল সিস্টেম এ আপলোড করবেন
  • ডিবিবিএল সিস্টেম অ্যাকাউন্টধারীর তথ্য যাচাই করবেন এবং সুবিধাভোগীকে অর্থ প্রেরণের জন্য তহবিল থেকে অর্থ কেটে আউটলেট একাউন্টে স্থানান্তর করবেন
  • আউটলেট টেলার সিস্টেম যাচাই পূর্বক অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা প্রদান করবেন এবং স্বাক্ষর নিবেন
  • তারপর একাউন্টধারী এবং আউটলেট টেলার ও ভাই মেসেজের মাধ্যমে কনফার্মেশন লেনদেন নিশ্চিত হবেন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: