Skip to content

মা নিয়ে রচনা/ আমার মা রচনা

মা নিয়ে রচনা/ আমার মা রচনা

মা নিয়ে রচনা/ আমার মা রচনা: আসসালামু আলাইকুম আপনাদের সবাইকে জানাচ্ছি অনেক অনেক আন্তরিক শুভেচ্ছা এবং অভিনন্দন। আজকে আমরা আপনাদের মাঝে মা নিয়ে রচনা সম্পর্কে আলোচনা করবো। আমরা আজকে মা নিয়ে রচনা টি তুলে ধরার পাশাপাশি মা সম্পর্কে সামগ্রিক কিছু তথ্য আপনাদের মাঝে তুলে ধরবো। আমাদের আজকের এই পোস্ট থেকে আপনারা মা নিয়ে রচনা সংগ্রহ করতে পারবেন। আপনারা মা দিবসে আমাদের আজকের এই মা নিয়ে রচনা টি উপস্থাপন করতে পারবেন। আমাদের আজকের এই মা নিয়ে রচনাটি দ্বারা আপনি আপনার জীবনের বিশেষ বিশেষ দিনগুলোতে মায়ের প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা নিবেদন করতে পারবেন। আমাদের আজকের এই মা নিয়ে রচনাটি আপনাদের সকলের মনের মায়ের প্রতি  সম্মান ও ভালোবাসা জাগ্রত হয়ে উঠবে। নিঃসন্দেহে আমাদের আজকের এই লেখাটি আপনাদের সকলের হৃদয়ে জায়গা করে নেবে।

মা আমাদের জীবনের সবথেকে অতি আপনজন একজন মানুষ। যিনি আমাদের জীবনের সকল কর্মকাণ্ডে প্রধান ভূমিকা পালন করে থাকেন। তিনি আমাদের জন্ম থেকে শুরু করে বেড়ে ওঠা পর্যন্ত প্রতিটি পদক্ষেপে সচেতনতার সাথে নিজ দায়িত্ব পালন করে থাকেন। আমরা মায়ের মাধ্যমে এই পৃথিবীতে জন্মলাভ করে থাকি। মা ছাড়া আমাদের জীবনের সম্পূর্ণ। পৃথিবীতে মা এমন একজন ব্যক্তি যার অভাব সারা পৃথিবী দিয়েও পূর্ণ করা যায় না। প্রতিটি মা নিঃস্বার্থভাবে তার সন্তানদের ভালোবেসে থাকেন। পৃথিবীতে একমাত্র স্বার্থপর কথাটি মায়ের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয় না। কেননা মায়ের মত নিঃস্বার্থভাবে কখনো কেউ ভালবাসতে পারে না। মায়ের ভালোবাসার সাথে কোন স্বার্থ জুড়ে নেই। তাইতো পৃথিবীতে মায়ের উপমা বলে কিছু নেই। মায়ের ভালোবাসা প্রতিদান হিসেবে আমরা মাকে কিছুই দিতে পারি না। তবু মায়ের প্রতি সম্মান ও ভালোবাসা প্রদর্শনের জন্য মা দিবসের আয়োজন করা হয়। মা দিবসের মাধ্যমে পৃথিবীর প্রতিটি মাকে সম্মান ও ভালোবাসা প্রদর্শন করা হয়।

মা নিয়ে রচনা/ আমার মা রচনা

অনেকে আছেন মা নিয়ে রচনা বা আমার মা রচনা সম্পর্কে অনুসন্ধান করে যান। তারা আমাদের আজকের এই মা নিয়ে রচনাটি সংগ্রহ করতে পারেন। আমরা আজকে আমাদের এই ওয়েবসাইটে মা নিয়ে রচনা বা আমার মা রচনা টি প্রকাশ করবো। আপনারা আমাদের আজকের এই মা নিয়ে রচনা বা আমার মা রচনাটি সংগ্রহ করে মা দিবসে রচনা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে পারবেন। আজকের এই মা নিয়ে রচনাটি আপনাদের প্রত্যেককে হৃদয়ে মায়ের প্রতি সম্মান ও ভালোবাসা জাগ্রত গড়ে তুলবে। আপনি আমাদের আজকের এই মা নিয়ে রচনাটি আপনার বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করে দিতে পারবেন এবং মায়ের প্রতি ভালোবাসা ও সম্মান প্রদর্শনে আপনি এটি সোশ্যাল মিডিয়াও ব্যবহার করতে পারবেন। নিচে মা নিয়ে রচনা টি প্রকাশ করা হলো:

মা আমাদের সবচেয়ে প্রিয়জন। আমার মায়ের নাম জরিনা বেগম। তিনি একজন গৃহিণী। তাঁর স্নেহের বন্ধনে আমাদে পরিবারের সবাই বন্দি। তার অসাধারণ ব্যক্তিত্ব, জীবন ও জগৎ সম্পর্কে বাস্তবতার মেধাবী পর্যবেক্ষণ আমাকে মুগ্ধ করে। মা হয়েও কী করে এতাে শক্তি-সাহস বুকের ভিতর পুষে রেখেছেন তা আমাকে ভাবিয়ে তােলে। আমার ‘মা’ সত্য ও সুন্দরে পূজারি।

জীবনে কোনাে অন্যায়ের কাছে তিনি মাথা নত করেন নি। শত প্রতিকূলতার মাঝেও তিনি শক্ত হাতে সংসারের হাল ধরে রেখেছেন। এমন কর্তব্যনিষ্ঠ ও নিরহংকারী মানুষ আমি আর দেখিনি। আমার মা সকল মানুষকে ভালােবাসেন, বিপদে সহায়তা করেন, দুঃসময়ে পাশে দাঁড়ান। একজন আদর্শ মায়ের সকল গুণাগুণ আমার মায়ের চরিত্রে রয়েছে। আমার প্রতি মায়ের ভালােবাসা অকৃত্রিম। আমার মা তেমন শিক্ষিত না হলেও তার মাঝে রয়েছে বিচক্ষণতা। তাঁর বাচনভঙ্গি ও নির্মলতা অকৃত্রিম। আমার মা-ই আমার জ্ঞানের ভিত্তি। তিনি আমার জ্ঞানের প্রতি আগ্রহ জাগিয়েছেন। আমার জীবনের সফলতার পিছনে আমার মায়ের অবদান অবর্ণনীয়। প্রিয় মানুষ ‘মা’-এর আদর্শ আমার হৃদয়ে চির বিরাজমান।

উপসংহার:

আমার সব বন্ধুরা জীবনে বিভিন্ন বড় বড় লোকের মতন হতে চায়। কেউ বলে জীবনে রবীন্দ্রনাথের মতন হবে, কেউ বলে নেতাজির মতন হবে। কিন্তু আমি আমার জীবনে আমার মায়ের মতন মানুষ হতে চাই। আমার মা যেভাবে আমাদের গোটা পরিবারকে এক সূত্রে বেঁধে রাখে আমি আমার জীবনে ভালবাসার সেই জাদুকাঠি অর্জন করতে চাই।

আমার কাছে আমার মা জীবনে দেখা সবচেয়ে আদর্শ মানুষ। আমার মা যেমন সব সময় সকলের ভালো চায় আর পরিবারের সেবা করে আমিও তেমন ভাবেই সারা জীবন আমার পরিবার আর বিশেষ করে আমার মায়ের সেবা করে যেতে চাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: