টিপস

মেয়েদের মেদ (ভূরি) কমানোর উপায় ২০২২

মেয়েদের মেদ (ভূরি) কমানোর উপায় ২০২২| অনেক মেয়েদের এই সমস্যা। এটি নিয়ে অনেকেই চিন্তিত অনেকেই চাচ্ছেন ঘরোয়া পদ্ধতিতে এ সমস্যার সমাধান পেতে। কিংবা কেউ কেউ চাচ্ছেন এটি কমানোর জন্য করণীয় কি এই বিষয়গুলি সম্পর্কে জানান। আপনি যদি মেদ ভুড়ি কমানোর উপায় গুলি সম্পর্কে জানতে চাচ্ছেন তাহলে এই পোষ্ট টি আপনার জন্য। আশা করি এই পোষ্টের মাধ্যমে আপনি উপকৃত হবেন জানতে পারবেন মেয়েদের ভুড়ি কমানোর কার্যকরী পদ্ধতি গুলো সম্পর্কে। আমরা দীর্ঘদিন ধরে এই বিষয়টি সম্পর্কে রিচার্জের মাধ্যমে কয়েকটি উপনির্বাচন করেছি যেগুলো আপনাদের জন্য খুবই কার্যকর হবে বলে মনে করি। সুতরাং যাদের মেদ ভুড়ি কমানোর ইচ্ছা রয়েছে তারা অবশ্যই পুরো পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়বেন আমরা চেষ্টা করেছি আপনাদের এই পোস্টের মাধ্যমে সহযোগিতা করার।

অনেক মেয়ের মেয়েদের ঘড়ি স্বাভাবিকের তুলনায় একটু বেশি বড় হয়ে থাকে। এরফলে দেখতে একটু খারাপ লাগে এছাড়াও কেউ চায়না এই ধরনের সমস্যা নিয়ে থাকবে। এছাড়াও এই সমস্যা নিয়ে থাকলে পরবর্তী সময়ে আরও বড় সমস্যার সম্মুখীন হতে পারে। তাই মেয়েদের মেদ ভুড়ি সম্পর্কে সচেতন থাকা উচিত।

মেয়েদের মেদ (ভূরি) কমানোর উপায়

এখানে আমরা উপায় গুলি সম্পর্কে আলোচনা করব। এখান থেকে মেয়ের ভুড়ি কমানোর উপায় গুলি সম্পর্কে জেনে আপনারা অবশ্যই এই উপায়গুলি অবলম্বন করবেন। এক সপ্তা দশ দিন এই নিয়ম অনুযায়ী করার পর ফলাফল লক্ষ করতে পারবেন। আমাদের মাঝে অনেকেই রয়েছে যারা এই উপায়গুলি জানে কিন্তু এগুলো অনুসরণ করে না। তাই আপনারা এই সম্পর্কে বিস্তারিত জানার চেষ্টা না করে পদ্ধতি গুলো অবলম্বন করুন আশা করি সন্তুষ্ট জনক ফলাফল পাবেন।

গরম পানিতে লেবু

সকালে এক কাপ ঘন কফি বা চা মন মেজাজ ভালো করে দেয় ঠিকই। কিন্তু যদি ওজন কমাতে চান তাহলে প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে গরম পানিতে লেবুর রস পান করুন।

লেবু ভিটামিন সি ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ যা হজমে সাহায্য করে ও শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ বের করে দিতে সহায়তা করে। এছাড়াও এটা দ্রুত চর্বি কমাতে সহায়তা করে। গরম পানিতে লেবু খাওয়া বেশি কষ্টকর মনে হলে এতে এক চামচ মধু যোগ করতে পারেন।

প্রতিদিন জিরা পানি পান

সকালে পানীয় হিসেবে জিরা পানি পান করুন। এটা হজমে সহায়তা করে, পেট ফোলাভাব কমায় ও পেটের মেদ কমাতে সহায়ক ভূমিকা রাখে।

প্রোটিন সমৃদ্ধ নাস্তা

শরীরে শক্তি যোগাতে প্রোটিন ভূমিকা রাখে। নাস্তায় প্রোটিন খাওয়া পেশি গঠনের পাশাপাশি সারাদিন পেট ভরা অনুভূত হতে সহায়তা করে। ফলে বাড়তি ক্যালরি গ্রহণের ঝুঁকি কমে।

প্রোটিন রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে ও দেহে চর্বি সঞ্চয়কারী ইন্সুলিনের মাত্রা কমায়।

শস্য-জাতীয় খাবার

শস্য-জাতীয় খাবার আঁশ সমৃদ্ধ। এটা শরীর সুস্থ রাখার পাশাপাশি ক্ষুধাভাব কমাতে ও উচ্চ ক্যালরিবহুল খাবারের চাহিদা কমাতে সহায়তা করে। উচ্চ আঁশ সমৃদ্ধ শস্য ওজন কমায় এবং পেটের মেদ কমাতেও সহায়তা করে।

মসলা

আদা স্থূলতার সমস্যা কমায় এবং প্রদাহনাশক উপাদান সমৃদ্ধ। ওজন কমাতে চাইলে খাবারে এই ধরনের মসলা যোগ করুন। এটা দেহের ইনসুলিনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে।

মানসিক চাপ কমাতে যোগ ব্যায়াম বা ধ্যান

মানসিক চাপ ও উদ্বেগ চর্বি বৃদ্ধিকারী হরমোন যেমন কর্টিসোলের মাত্রা বাড়ায়। কর্টিসোলের তীব্রতা ক্ষুধা বাড়ায়, ক্যালরি বহুল খাবারের চাহিদা বাড়ায় এবং পেটে চর্বি জমাতে ভূমিকা রাখে। তাই মানসিক চাপ কমাতে যোগ ব্যায়াম ও ধ্যানের অভ্যাস গড়ে তুলুন।

পর্যাপ্ত পানি পান

ওজন কমানোর মূল চাবি কাঠি হল পর্যাপ্ত পানি পান। নিজেকে আর্দ্র রাখার পাশাপাশি এটা অস্বাস্থ্যকর খাবারের চাহিদা কমায়। খাবারের আগে পানি পান অতিরিক্ত খাওয়ার সম্ভাবনা হ্রাস করে ফলে পেটে চর্বি জমা হওয়ার ঝুঁকিও কমে।

Back to top button
Close